INCREASE AND PROTECT ANDROID SECURITY AND PRIVACY

How To Secure Your Android From Hackers and Protect Your Android Privacy



How To Secure Your Android From Hackers and Protect Your Android Privacy


আজকের এই সময়ে আমাদের প্রত্যেকের হাতেই স্মার্টফোন আছে, এবং সেটাকে আমরা স্মার্ট হওয়ার জন্য ব্যবহার করি।  স্মার্টফোন ব্যবহার করে আমরা স্মার্ট হলেও নিজের মোবাইলের সিকিউরিটি এবং প্রাইভেসি এর ব্যাপারে পুরোপুরি উদাসীন থাকি।

অথচ আমরা এই স্মার্ট ফোন দিয়েই মোবাইল ব্যাঙ্কিং, ই ওয়ালেট পেমেন্ট, পে-টি-এম, অফিস এর কাজ করার মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো করছি। তাই অবশ্যই আমাদের মোবাইলের সিকিউরিটি এবং প্রাইভেসি এর ব্যাপারে একটু নলেজ রাখতে হবে এবং সতর্ক থাকতে হবে। তা যদি না করি ইন্টারনেট এর এই দুনিয়ায় যেকোনো সময়েই বিপদে পড়তে পারি।

তাই আজ আমি এই ব্যাপারেই আপনাদের সাথে কিছু টিপস শেয়ার করবো। তাহলে আসুন শুরু করা যাক....


1. আমাদের মধ্যে প্রায় প্রত্যেকেই Android ইউজার। কিন্তু 50-60% smartphone ব্যবহারকারী স্ক্রিনলক ব্যবহার করেন না, তাদের উদ্দেশ্যে বলছি screen লক ব্যবহার করা শুরু করুন কারণ এটাই আপনার ফোন সিকিউর রাখার প্রথম ধাপ। এর জন্য Settings > Lock Screen Password এ গিয়ে আপনার পছন্দের স্ক্রিনলক দিন। যদি fingerprint lock অপশন থাকে তাহলে অবশ্যই সেটা use করুন। আর মনে রাখবেন যদি প্যাটার্নলক দেন তাহলে Make Pattern Visible অপশনটি কে disallow করে দেবেন।
Increase and Protect Android security and Privacy step -1

2. আপনার মোবাইলের unknown sources allow অপশন থেকে app ইনস্টল করার প্রক্রিয়াটি বন্ধ করে দিন। এর জন্য Settings > Additional Settings > Privacy তে গিয়ে unknown sources কে disallow করে দিন। প্রয়োজনে নিচের স্ক্রীনশর্ট দেখুন....

Increase and Protect Android security and Privacy step -2

3. প্রতিটা app এর জন্য App Lock ব্যবহার করুন। অনেক ইউজার বারবার password দেওয়ার বিরক্তির কারণে app lock ব্যবহার করেন না তাদের কে বলছি আপনার বিরক্তির বা সময়ের থেকে আপনার তথ্য অনেক মূল্যবান, সব app এ lock না ব্যবহার করলেও গুরুত্বপূর্ণ app গুলিতে লক দিয়ে রাখুন, যেমন - Settings, Gmail, File Manger, WhatsApp, Facebook ইত্যাদি। যদি কোনো পেমেন্ট রিলেটেড app থাকে সেটা আগে সিকিওর করুন।

4. Google playstore ছাড়া অন্য সোর্স থেকে app ইনস্টল করার অভ্যাস ছেড়ে দিন এবং ক্র্যাক করা অথবা সিকিউরিটি ব্রেক করা app ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। এতে আপনি অনেক বেশি secure থাকবেন।
তাও যদি মনে হয় ক্র্যাক app use করতেই হবে তাহলে আমাকে নিচে কমেন্ট করতে পারেন আমি কিছু ট্রাস্টেড source দিয়ে দেব।

5. Playstore থেকে app ইনস্টল করার সময় এবং পরে app পারমিশন পুনরায় খুব ভালোভাবে চেক করে দেখে নেবেন , যদি কোনো app তার কাজ এর সাথে রিলেটেড পারমিশন ছাড়া এক্সট্রা পারমিশন চায় তাহলে দেবেন না.. আর যদি সেই পারমিশন ছাড়া app টি চলতে না চায় তাহলে তার বদলে অন্য app ব্যবহার করুন।
ইনস্টল করা app এর পারমিশন চেক করতে Settings > Installed Apps এ গিয়ে যেকোনো একটা app সিলেক্ট করে App Permission অপশন সিলেক্ট করলেই চেক করতে পারবেন।

6. মোবাইল এর Default Clener and Security app ব্যবহার করুন। এর জন্য third party মানে এক্সট্রা কোনো app ইনস্টল করার কোনো প্রয়োজন নেই। তবু যদি Antivirus ব্যবহার করতেই হয় তাহলে premium service ইউস করবেন। এতে আপনার মোবাইল অনেক সিকিউর থাকবে।

7. মোবাইল সিস্টেম Software এর আপডেট এলেই তা 2-3 দিন এর মধ্যে করে ফেলার চেষ্টা করুন। Default app and installed app সবসময় আপডেট রাখুন, অন্তত week এ একবার আপডেট করতেই হবে। এটা ঝামেলা মনে হতে পারে কিন্তু এটাও সিকিউরিটি এর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

8. আপনার ডিভাইসকে ক্ষতিকর app থেকে বাঁচাতে Google Play Protect ফিচারটি অন করুন। এতে আপনার মোবাইলে কোনো ক্ষতিকর app থাকলে google প্লে আপনাকে এলার্ট করে দেবে এবং install করতে দেবে না।
ফিচারটি অন করতে Setting > Google > Security > Google Play Protect  এ গিয়ে Scan Device Security Threats এবং Improve Harmful App Detection অপশনগুলি অন করে দিন। প্রয়োজনে নিচের Screen Sort দেখুন....

Increase and Protect Android security and Privacy step - 8

9. ফোন হারিয়ে যাওয়া ও পরে খুঁজে বার করার জন্য আগে থেকে protection নিন, এবং আপনার ডিভাইস কে আরও secure করুন। অপশনটি অন করতে Setting > Google > Security > Find My Device যেতে হবে। নিচের Screen Sort দেখুন...

Increase and Protect Android security and Privacy step - 9

10. ডিভাইস এর Data ভুলবশত বা অন্য কোনো কারণে Delete হয়ে যাওয়ার পর ফিরিয়ে আনার জন্য আগে থেকে backup নিয়ে রাখুন। Backup নেওয়ার জন্য Settings > Additional Settings > Backup and Reset এ গিয়ে Start করুন।

11. আরএকটা সাবজেক্ট টাচ না করলে টিউটোরিয়াল টা পুরো হবে না সেটা হলো Root. রুট করার অনেক সুবিধা রয়েছে, কিন্তু এখন যেহেতু 90% এন্ড্রোইড ফোন ললিপপ এবং কিটক্যাট এর উপরের version এ চলে সেহেতু এখন রুট না করেই অনেক বেশি কাষ্টোমাইজেশন করা যায়।  তাই পরিশেষে বলবো সাধারণ user এর root করার কোনো প্রয়োজন নেই, রুট না করেও তারা অনেক customization করতে পারবেন।
এরজন্য ইন্টারনেট এ অনেক টিউটোরিয়াল পাবেন এবং ধীরে ধীরে ওই ধরণের টিউটোরিয়ালও এখানে প্রকাশিত করা হবে ।

আপনারা যদি উপরের এই টিপসগুলো মেনে চলেন তাহলে আমি 100% শিউর আপনি আগের থেকে অনেক অনেক বেশি সিকিউর থাকবেন এবং নিজেকে hacking এর হাত থেকে বাঁচাতে পারবেন। তো আজকের জন্য এইটুকুই পরের টিউটোরিয়াল এ আবার দেখা হবে।

পরের টিউটোরিয়াল এ, ইন্টারনেটে Safely Browsing And data privacy নিয়ে আলোচনা করবো ততক্ষন আমাদের সাথেই থাকুন এবং এই ধরণের পোস্ট পেতে আমাদের Facebook Page এ like করুন।  যদি কোনো পয়েন্ট বুঝতে অসুবিধা হয় অথবা কোনও question থাকে তাহলে comment বক্স এ অবশ্যই জানান।

Post a Comment

0 Comments