How to securely browse internet and protect data privacy

How to protect  your online data privacy and security

How to securely browse internet and protect data privacy



ইন্টারনেট আমরা প্রত্যেকে ব্যবহার করি, কেউ পড়াশোনা করতে, কেউ Bussiness রিলেটেড কাজে, কেউ entertainment করতে ইত্যাদিতে। ইন্টারনেটে আমরা যাই কিছু করি না কেন, আমরা জেনে অথবা না জেনে সবসময়ই আমাদের পার্সোনাল data দিয়ে যাচ্ছি...তাই আমাদের অবশ্যই ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় নিজের অনলাইন সিকিউরিটি এবং data privacy এর ব্যাপারে কিছু জিনিস মাথায় রাখতে হবে যদি নিজেকে ক্ষতির বাঁচাতে হয়। কারণ আমরা ভালো করেই জানি আমরা ইন্টারনেটে অনেক ধরনের থ্রেটস এর মুখে পড়তে পারি সিকিউরিটি এবং পার্সোনাল বিভিন্ন ব্যাপারে।

তাই আজকে আমি এই বিষয়টির উপরেই আপনাদের সাথে কিছু টিপস শেয়ার করবো। যেগুলো মেনে চললে আপনারা safe and secure ভাবে ইন্টারনেট ব্রাউজ করতে পারবেন এবং হ্যাকার এর হাত থেকে বাঁচতে পারবেন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।


1. সিকিউরিটি বাড়ানোর প্রথম কথা হলো নিজে সচেতন থাকা। ইমেল, সোশ্যাল মিডিয়া অথবা অন্যান্য জায়গায় শেয়ার করা অজানা যেকোনো লিংক এ  ক্লিক করবেন না, কারণ সেটা যেকোনো ধরণের malicious link হতে পারে যার কারনে আপনার সিকিউরিটি ও প্রাইভেসি ব্রেকডাউন হয়ে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য অন্য ব্যক্তির কাছে চলে যেতে পারে।

2. আপনার ব্রাউজার এ সবসময় https প্রটোকল সংযুক্ত সাইটগুলি-ই run করার চেষ্টা করুন, এবং কখনই ব্রাউজার রেস্ট্রিকশন (মানে ব্রাউজার আপনাকে যে সাইটগুলো সম্বন্ধে সচেতন করছে, malicious হতে পারে বলে) ব্রেক করে কোনো website খুলবেন না।

3. কোনো কিছু download করার আগে অথবা কোনো পেজে ও ওয়েবসাইটে সেনসিটিভ ইনফরমেশন দেওয়ার আগে ওয়েবসাইট টি ট্রাস্টেড কিনা খুব ভালোভাবে চেক করে নিন। তার জন্য Chrome এর Web of Trust Extention টি ব্যবহার করতে পারেন অথবা Android ইউজাররা playstore থেকে সরাসরি app install করে ব্যবহার করতে পারেন।

এছাড়া DR Web এর Online Tool ইউজ করতে পারেন।

Dr Web Online Tool

Dr web online tool

4. কোনো সাইট ব্রাউসিং এর সময় ওয়েবসাইট অথবা আপনার ব্রাউজার যদি Password save করে রাখার অপশন দেখায় কখনই save করবেন না। কারণ পরে ওয়েবসাইট বা ব্রাউজার হ্যাক হলে আপনার password চুরি যেতে পারে এবং সমস্যায় পড়তে পারেন।

5. আপনি যদি chrome ব্রাউজার এর ইউসার হন তাহলে নিচের setting গুলো অবশ্যই করুন...

A. Setting > Privacy তে গিয়ে Safe Browsing ফিচারটি অন করুন, যদিও এটি by default অন থাকে তবু চেক করে নিন।

B. Setting > Privacy > Do Not Track ফিচারটি অন করুন।

How to securely browse internet and protect data privacy
step - 5

C. Setting > Password এ গিয়ে Save Password অপশনটি disallow করে দিন।

How to securely browse internet and protect data privacy
step - 5 (b)

D. Setting > site settings > Cookies  এ গিয়ে Third Party Cookies অপসানটিকে Disallow করে দিন।

How to securely browse internet and protect data privacy
step - 5 (c)

6. সেনসিটিভ ডেটা সংযুক্ত প্রতিটা account এ Two Step Verification ফিচারটি অন করুন।

What is two step verification Process ?

Two Step Verification হলো এমন একটি লগইন প্রক্রিয়া যেটা অন থাকলে আপনার যেকোনো account এ প্রবেশ করার সময় প্রতিবারই আপনার মোবাইল এ একটি কোড আসবে আর সেটা ভেরিফিকেশন এর টাইম এ দিলে তবেই আপনার account একসেস করতে পারবেন।

বিস্তারিত জানতে নিচের পোস্টটি দেখুন

All About Two Step Verification Process

7. প্রতিটা অনলাইন এবং অফলাইন account এ strong password দিন, যেটি আলফা নাম্বারিক এবং স্পেশাল কী যুক্ত হবে। যেমন - supriyo19@20M

8. Private ব্রাউসিং এর জন্য browser হিসাবে Mozilla Firefox ব্যবহার করতে পারেন, যদিও কিছুটা slow কাজ করে তবুও আপনার ডেটা অনেক Private থাকবে, Chrome ব্রাউজার এর মত আপনাকে all time track করবে না।

9. এছাড়া নিজেকে আরো secure রাখতে privately web browsing করুন। এর জন্য google এর বদলে Duck Duck Go Search engine ব্যবহার করুন যা আপনার কোন টাইপ এর ডেটা consume করবে না।

10. Browsing history রেকর্ড না রেখে যদি কোনো কিছু browse করতে চান তাহলে incognito mode চালু করে browse করতে পারেন, যে অপশন আপনি Chrome, Firefox, Dolfin সহ অনেক browser এ পেয়ে যাবেন।

অথবা এর জন্য আপনি খুবই lightweight একটি ব্রাউজার ব্যবহার করতে পারেন যার নাম হল, Firefox Focus। এটি খুবই অসাধারন একটি browser। যেটা নিয়ে পরে আলাদা পোস্ট করার ইচ্ছা আছে।

11. Public Wifi ব্যবহার করা থেকে এড়িয়ে চলুন। ফ্রী তে wifi ব্যবহার করতে গিয়ে আপনি অনেক বড় প্রতারনার হাতে পড়তে পারেন। এরপরও যদি মনে হয় ব্যবহার করতেই হবে বা একান্তই প্রয়োজন তাহলে অবশ্যই VPN service ইউস করুন সাথে ভালো কোনো সিক্যুরিটি app ব্যবহার করুন।


উপরের টিপসগুলো ফলো করলে আপনি আগের থেকে অনেক নিরাপদভাবে ইন্টারনেট ব্রাউজ করতে পারবেন। এতক্ষন আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। এরকম ভালোভালো আরো পোস্ট পেতে আমাদের Facebook Page এ like করুন এবং কমেন্ট করে জানান পোস্টটি কেমন লাগলো অথবা আপনার মতামত।

Post a Comment

0 Comments